হযরত আলী (রাঃ)-এর দানের বিস্ময়কর ঘটনা

হযরত আলী ও ফাতেমা রাঃ

হযরত আলী (রাঃ)-এর পরিবারে ৫ জন সদস্য ছিলেন। তিনি নিজেসহ হযরত ফাতিমা (রাঃ), হযরত হাসান (রাঃ), হযরত হুসাইন (রাঃ) এবং হযরত হারিস (রাঃ)। একবার তাঁরা তিনদিন অনাহারে থাকেন। কিছুই আহার জোটেনি ।

হযরত ফাতেমা (রাঃ)-এর একটি চাদর ছিল। তিনি তা বিক্রির জন্যে হযরত আলী (রাঃ) কে দিলেন। হযরত আলী (রাঃ) তা ছয় দিরহামে বিক্রি করে দেন।

আর তখনই একজন ফকির এসে তাঁর কাছে ছাওয়াল করল, আল্লাহর ওয়াস্তে আমাকে দান করুন। হযরত আলী (রাঃ) সে ছয় দিরহাম ফকিরদের মাঝে সদকা করে দিলেন।

এই বিস্ময়কর ঘটনার পর হযরত জিব্রাঈল (আঃ) মানবরূপে হযরত আলী (রাঃ)-এর সাথে পথে সাক্ষাৎ করেন। তাঁর সঙ্গে ছিলো একটি জান্নাতি উট। তিনি বললেন, হে আবুল হাসান; আমার থেকে তুমি এই উটটি ক্রয় কর । আলী (রাঃ) উটটি নিয়ে বললেন; আমার নিকট এটা ক্রয় করার মতো কোনো মূল্য নেই। তিনি বললেন; আপনি ইহা বাকিতে নিন। আলী (রাঃ) বললেন ; কততে আপনি বিক্রি করবেন। তিনি বললেন, একশ’ দিরহাম। অতঃপর হযরত আলী (রাঃ) একশ’ দিরহামের বিনিময়ে তা ক্রয় করলেন এবং তার লাগাম ধরলেন। আলী (রাঃ) পথ চলতে লাগলেন।

এর কিছুক্ষণ পর বেদুঈনরূপে হযরত মিকাঈল (আঃ) তাঁর সাথে সাক্ষাৎ করলেন এবং বললেন, হে আবুল হাসান; এ উটটি কি বিক্র করবেন ? তিনি বললেন, হ্যাঁ, মিকাঈল (আঃ) জিজ্ঞেস করলেন, আপনি কত মূল্যে তা ক্রয় করলেন ? আলী (রাঃ) বললেন, একশ’ দিরহামে। বেদুঈন বললো , আমি ষাট দিরহাম লাভে তা ক্রয় করব। এরপর উটনীটি তিনি তাঁর নিকট একশ’ ষাট দিরহামে বিক্রি করলেন।

বেদুঈন তাঁকে একশত ষাট দিরহাম দিলো। আলী (রাঃ) টাকা নিয়ে পথ চলতে লাগলেন। পথিমধ্যে পূর্বের সেই বিক্রেতার সাথে তাঁর সাক্ষাৎ হলো। তিনি ছিলেন হযরত জিব্রাঈল (আঃ)। আলী (রাঃ) কে বললেন, হে আবুল হাসান; নিশ্চয়ই উটনি বিক্রি করেছেন ? তিনি জবাব দিলেন হ্যাঁ , জিব্রাঈল (আঃ) বললেন , আমার প্রাপ্য পরিশোধ করুন। আলী (রাঃ) তাঁকে কথামত একশত দিরহাম দিয়ে দিলেন এবং তাঁর সঙ্গে ছিলো ষাট দিরহাম ।

এ নিয়ে ফাতেমার গৃহে ফিরলেন এবং তাঁর সম্মুখে দিরহামগুলো রেখে দিলেন । ফাতেমা (রাঃ) জিজ্ঞেস করলেন, এত দিরহাম কোথায় পেয়েছেন ? আলী (রাঃ) বললেন, আল্লাহর সঙ্গে ছয় দিরহাম দিয়ে ব্যবসা করেছি, তিনি আমায় ষাট দিরহাম দান করেন। অতঃপর তিনি মহানবী সাল্লালাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর নিকট গেলেন এবং ঘটনা খুলে বললেন।

মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন: হে আলী ! বিক্রেতা জিব্রাঈল (আঃ), আর ক্রেতা ছিলেন মিকাঈল (আঃ)। অতঃপর তিনি বললেন, শুন হে আলী ; আল্লাহপাক তোমাকে এমন তিন রত্ন দান করেছেন যা অন্য কাউকে দান করেননি।

(১) তোমার স্ত্রী জান্নাতী রমণীদের সর্দার, (২) তোমার পুত্রদ্বয় জান্নাতী যুবক কূলের নেতা, আর (৩) তোমার শ্বশুর নবীকুলের সর্দার। সুতরাং আল্লাহর এ দানের জন্যে তাঁর কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন কর এবং সে সব নেয়ামতের ব্যাপারে তাঁর প্রশংসা কর, যা তোমাকে তিনি দান করেছেন। আল্লাহ সর্বজ্ঞ।

Facebook Comment

You May Also Like