ফিলিপাইনে মোরগের হাতে পুলিশ কর্মকর্তা খুন!

ফিলিপাইনে  মোরগ লড়াই উচ্ছেদ করতে গিয়ে মোরগের কাছেই খুন হলেন একজন পুলিশ কর্মকর্তা


ফিলিপাইনে মোরগ লড়াই উচ্ছেদ করতে গিয়ে মোরগের কাছেই খুন হলেন একজন পুলিশ কর্মকর্তা। আর এমন বিস্ময়কর ঘটনা ঘটেছে দেশটির সামারা প্রদেশে।

করোনার (corona) সময় যেকোনো গণজমায়েত নিষিদ্ধ হওয়ায় সেখানে অভিযান চালিয়েছিল পুলিশ। পুলিশ ওই অভিযানে মোড়গলড়াই হওয়া একটি গ্রামে গিয়ে হাজির হয়। এসময় লেফট্যানেন্ট ক্রিশ্চিয়ান বোলোক একটি লড়াকু মোরগ ধরে ফেলেন। অবৈধ ভিড়ের প্রমাণ হিসেবে মোরগটি ধরতে গিয়েছিলেন তিনি। এসময় ওই মোরগটির পায়ে লাগানো ব্লেড পুলিশ অফিসারের উরূতে বিঁধে যায়। এতে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয় তার। এরপর আস্তে আস্তে তিনি মৃত্যুর কোলে ঢোলে পরেন। সামারার পুলিশ প্রধান কর্নেল আর্নেল আপুদ এমনটাই জানিয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, এমন ঘটনা আমার ২৫ বছরের চাকরি জীবনে দেখিনি। এটা দুর্ভাগ্যজনক দুর্ঘটনা। এর কোনো ব্যাখ্যা নেই আমার কাছে। এই প্রথম মোরগের জখমের কারণে আমার কোনো সহকর্মীকে হারালাম।

এ ঘটনায় বাজির আসর থেকে তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। এসময় আরো তিনজন সন্দেহভাজনকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এছাড়াও মোরগলড়াই খেলায় ব্যবহার হওয়া দুইটি মোরগ আটক করেছে পুলিশ।

মোরগলড়াই বা ‘টুপাডা’ ফিলিপাইনের একটি জনপ্রিয় রক্ত রঞ্জিত খেলা। যেখানে ব্লেড বা ধারালো অস্ত্র সজ্জিত দুটি মোরগের মধ্যে লড়াই করানো হয়। এজন্য অর্থ ও বাজি ধরা হয়।

এর আগে একটি মোরগলড়াই থেকে পাঁচজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হবার পর সামারা প্রদেশে মোরগলড়াই নিষিদ্ধ করা হয়।

Facebook Comment

You May Also Like